Sangbad World

Viral: DSP মেয়েকে স্যালুট ইনস্পেক্টর বাবার, চোখের জলে ভাসলেন দুজনেই

অন্ধ্রপ্রদেশের (Andhra Pradesh) হায়দ্রাবাদের ঘটনা। একই ডিপার্টমেন্টে থাকা‌ উচ্চপদস্থ মেয়েকে পেশাদারী ভঙ্গিমায় কাজের জায়গায় স্যালুট করলেন বাবা। বাবা এবং মেয়ে দুজনেই পুলিশ বিভাগে কর্মরত। অন্ধ্রপ্রদেশ পুলিশ বিভাগে কর্মরত ওয়াই শ্যাম সুন্দর সার্কুলার ইন্সপেক্টর। পেশাদারিত্বের জায়গায় মেয়েকে স্যালুট করলেন এই সার্কুলার ইন্সপেক্টর। মেয়ে পেশায় ডেপুটি পুলিশ সুপার (DSP)।

গুন্টুর জেলায় কর্মরত এই ডেপুটি পুলিশ সুপারের নাম ইয়েন্দলুরু জেসি প্রশান্তি। ২০১৮ সালে যিনি যোগ দিয়েছেন অন্ধ্রপ্রদেশ পুলিশ বিভাগে। তিন দিন যাবৎ অন্ধ্রপ্রদেশে চলা ইগনাইট অনুষ্ঠানে পেশাদারী ভাবে দেখা হয় এই বাবা ও মেয়ের। ইগনাইট আসলে পুলিশদের ডিউটি মিট। যেখানে বিভিন্ন পদস্থ পুলিশের অফিসাররা একসাথে এক জায়গায় এসে মিলিত হন এবং বিশেষভাবে সেখানে কিছু অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। অন্ধ্রপ্রদেশে এই পুলিশ মিট চলছে ৪ থেকে ৭ জানুয়ারি। সেই অনুষ্ঠানে এই অভাবনীয় ঘটনার সাক্ষী রইল সমগ্র অন্ধ্রপ্রদেশ পুলিশ বাহিনী।

অন্ধ্রপ্রদেশে এই দিন পুলিশ মিটে এসে হঠাৎ করেই দেখা হয়ে গেল ডেপুটি পুলিশ সুপার এর সাথে সার্কুলার ইন্সপেক্টর এর। ডেপুটি পুলিশ সুপার এবং সার্কুলার ইন্সপেক্টর পরস্পর পরস্পরের পরিচিত। শুধু তাই নয় পেশায় সার্কুলার ইন্সপেক্টর এর কন্যা হলেন ডেপুটি পুলিশ সুপার। পারিবারিক এই সম্পর্ক পেশাগত সম্পর্কেই পরিণত পাওয়ার সাক্ষী রইল সমগ্র পুলিশ বিভাগ। পেশাগত ভাবে ডেপুটি পুলিশ সুপার ইয়েন্দলুরু জেসি প্রশান্তির সঙ্গে সার্কুলার ইন্সপেক্টর ওয়াই শ্যাম সুন্দর এর ঐ দিন পুলিশ মিটে দেখা হলে নিজের মেয়েকে সম্মান এর সাথে স্যালুট করলেন বাবা।

যদিও সম্পর্কের দিক থেকে এবং বয়সের দিক থেকে জেসি প্রশান্তি শ্যাম সুন্দর এর থেকে ছোট কিন্তু প্রথাগত ন্যায় নীতি অনুযায়ী যেহেতু সম্মানের দিক থেকে সার্কুলার ইন্সপেক্টর এর থেকে‌ ডেপুটি পুলিশ সুপার বড় তাই এই প্রফেশনাল এথিকস দেখাতে বাবা শ্যাম সুন্দর একবারের জন্য ভেবে দেখেননি। সার্কুলার ইন্সপেক্টর শ্যাম সুন্দর এর মতে বাবা হিসেবে পেশাগত দিক থেকে সম্মানে বড় মেয়েকে স্যালুট করতে পেরে তিনি গর্বিত।

এই দিন এই ঘটনায় সৃষ্টি হয়েছিল এক আবেগ ঘন মুহূর্তের। এই অনুষ্ঠানে যারা যারা উপস্থিত ছিলেন সকলে ভেসেছিলেন চোখের জলে। ডেপুটি পুলিশ সুপার জেসি প্রশান্তির মতে, ডিউটিতে থাকা অবস্থায় এই প্রথম তার সঙ্গে তার বাবার দেখা হলো। আমার স্যালুট করতে দেখে অস্বস্তি হচ্ছিল, যতই হোক, বাবা তো!

Exit mobile version