রামায়ণ-মহাভারত শুনে কেটেছে ছোটবেলা, আত্মজীবনীতে লিখলেন বারাক ওবামা

আত্মজীবনী লিখছেন বারাক ওবামা (Barack Obama)। আর তাতে বেশ খানিকটা জায়গা জুড়ে রয়েছে ভারতের কথা। নিজের জীবনীতে প্রাক্তন মার্কিন (US) প্রেসিডেন্ট ওবামা উল্লেখ করেছেন ভারতের প্রতি তাঁর একটা আলাদা আকর্ষণ রয়েছে। ছোট থেকে রামায়ণ-মহাভারত (Ramayana-Mahabharata) শুনে বড় হয়েছেন ওবামা।

Barack Obama spent his childhood listening to Ramayana-Mahabharata wrote in his autobiography

ছোটবেলায় ইন্দোনেশিয়ায় পরিবারের সঙ্গে কেটেছিল বারাক ওবামার। ওবামার ছাত্রজীবনও কেটেছিল ইন্দোনেশিয়াতেই। সেখানেই সংগত পেয়েছিলেন বেশ কয়েকজন ভারতীয় বন্ধুকে। ভারতীয় বন্ধুর সাথে পাকিস্তানের বেশ কিছু ছেলে ও তাঁর সঙ্গে ইন্দোনেশিয়ায় পড়াশোনা করতেন। সেই থেকেই ভারতীয় এবং পাকিস্তানীদের সঙ্গে বন্ধুত্ব শুরু হয় বারাক ওবামার। আর সেই থেকেই হয়তো ভারতের প্রতি প্রাক্তন মার্কিন (America) প্রেসিডেন্টের এই টান, এই ভালোবাসা।

ওবামা বলেছেন তাঁর জীবনের একটা বেশ লম্বা সময় কেটেছে হিন্দু মহাকাব্য রামায়ণ এবং মহাভারত পড়ে এবং শুনে। ভারতীয় ধর্মের প্রতি আকর্ষণ ভারতের প্রতি আকর্ষিত করেছিল। ভারতের সংস্কৃতি, বিভিন্ন বৈচিত্র্যময় ভাষা অবাক করে দিয়েছিল ওবামাকে। সারা পৃথিবীর মোট ব্যবহৃত ভাষার সিংহভাগই ভারতীয়দের। এই বিষয়টা ছোট থেকেই আকর্ষিত করেছিল ওবামাকে।

ওবামার মনে ভারত এক বিশেষ স্থান অর্জন করেছিল ছোট থেকেই। ২০১০ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের (USA) পদে নির্বাচিত হওয়ার পর প্রথমবার ভারতবর্ষে এসেছিলেন বারাক ওবামা। ভারতের বিষয়ে ওবামা তাঁর আত্মজীবনীতে লিখেছেন, ‘ আমার ছোটবেলা কেটেছে ইন্দোনেশিয়ায়। ওখানে হিন্দু মহাকাব্য রামায়ণ ও মহাভারত শুনেছি। তখন থেকেই ভারত নিয়ে আকর্ষণ তৈরি হয়েছিল। এটা ছাড়াও হতে পারে প্রাচ্যের ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হয়েছিলাম অথবা একদল ভারতীয় ও পাকিস্তানী কলেজ বন্ধু জুটেছিল। ওরাই আমাকে ডাল ও কিমা রান্না শিখে ছিল। ওদের সঙ্গে বলিউডের ছবিও দেখেছিলাম।’

Barack Obama former US president

ওবামা তাঁর আত্মজীবনীর নাম রেখেছেন ‘আ প্রমিসড্ ল্যান্ড ‘ (A Promised Land)। এই আত্মজীবনীটি ওবামা কম্পিউটারে টাইপ করে লিখেননি। বরং একটি হলুদ কাগজের প্যাডে পেন দিয়ে নিজের হাতে লিখেছেন। আত্মজীবনীটি প্রায় ৭৬৮ পাতার হয়েছে। ওবামা এও বলেছেন তাঁর আত্মজীবনীর এই লেখা নতুন প্রজন্মের জন্য। যে নতুন প্রজন্ম পরিশ্রম সংকল্প এবং ইচ্ছাশক্তি দিয়ে সারা পৃথিবীতে এক অনন্য পরিবর্তন আনার চেষ্টায় রয়েছে। তাদের জন্যই এই লেখা।

ভারতকে ভালোবাসার অন্যতম কারণ হিসেবে ওবামা বলেছেন, আয়তনের দিক থেকে ভারত অন্যতম। এই বিশাল দেশের জনসংখ্যা পৃথিবীর জনসংখ্যার ৬ ভাগের ১ ভাগ। ভারতে বাস করে প্রায় ২ হাজার জাতি, সেইসব মানুষের কথা বলার ভাষার প্রকারভেদ প্রায় ৭০০-রও বেশি। যা ওবামাকে প্রথম থেকেই ভারতের প্রতি আকৃষ্ট করে এসেছে।