মাদক কাণ্ডে জড়িত থাকার সন্দেহে এবার NCB-র জালে অর্জুন রামপাল

এবার নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরোর (NCB) জালে অর্জুন রামপাল (Arjun Rampal)। মুম্বাইয়ে (Mumbai) একাধিক বাড়িতে দীর্ঘ ৫ ঘন্টা সময় ধরে তল্লাশি চালানো এনসিবি। যদিও এখনো পর্যন্ত মাদক সংক্রান্ত কোন সন্দেহজনক প্রমাণ হাতে আসেনি অর্জুন-এর বিরুদ্ধে। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বলিউড (bollywood) অভিনেতার গাড়িচালককে নিজেদের হেফাজতে নিল এন সি বি।

Bollywood actor Arjun Rampal's Mumbai home searched by NCB due to drug case
Bollywood actor Arjun Rampal’s Mumbai home searched by NCB due to drug case.

বলিউড যে মাদকাসক্ত তা বহুদিন ধরেই কানাঘুষো শোনা যেত। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর তা আরও প্রকট হল। হাতের সামনে এলো তথ্য-প্রমাণ। রিয়া চক্রবর্তী, শ্রদ্ধা কাপুর, দীপিকা পাডুকন, সারা আলি খান সহ প্রায় ২০ জনের নামের একটি তালিকা নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরোর হাতে এসে পৌঁছায়। সেই তালিকা অনুযায়ী এনসিবি এর অফিসে পুছ্তাছের জন্য ডাক পড়ে দীপিকা, শ্রদ্ধা এবং সারা আলি খানের।

সুশান্তের মৃত্যুর তল্লাশির জন্য রিয়া চক্রবর্তী কে গ্রেফতারের পরই বেরিয়ে আসে বলিউড মাদক চক্রের গুপ্ত খবর। মাদক চক্রে জড়িয়ে থাকার সুবাদে বলিউডের তাবড় তাবড় ব্যক্তিত্ব ক্রমে ছড়িয়ে পড়তে থাকে এন সি বি র জালে। সেই থেকেই বলিউডের মাদক চক্র কে ধরার জন্য নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরোর একটি স্পেশাল টিম কাজ করতে থাকে লাগাতার।

বলিউডের মাদকচক্রে জড়িয়ে থাকার তালিকা ক্রমশ লম্বা হতেই থাকছে। শোনা যায় কিছুদিন আগে ফিল্ম মেকার সাজিদ নাদিয়াদওয়ালার মুম্বাইয়ের বাড়িতে তল্লাশি করতে যায় নারকোটিকস কন্ট্রোল ব্যুরোর একটি দল। সারা বাড়ি তন্ন তন্ন করে খুঁজে শেষমেষ হদিশ পাওয়া যায় ড্রাগের। এরপরই সাজিদ নাদিয়াদওয়ালার স্ত্রী সাবিনাকে গ্রেফতার করে এন সি বি। গ্রেফতারের পর সাবিনাকে পাঠানো হয় শারীরিক পরীক্ষার জন্য।

মুম্বাইতে অর্জুনের অনেকগুলি বাড়ি কেনা রয়েছে। তাই হঠাৎ করে কোনো একটি নির্দিষ্ট বাড়িতে তল্লাশি চালালে অর্জুন যদি দোষী হন তাহলে তিনি অন্যান্য বাড়িতে লুকিয়ে রাখা ড্রাগস সরিয়ে ফেলতে পারেন এই সন্দেহে এন সি বির তরফ থেকে একই সঙ্গে অর্জুনের তিনটি বাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়। বান্দ্রা, আন্ধেরি এবং খারে অর্জুনের রয়েছে তিন তিনটি বাড়ি। সেই তিনটি বাড়িতেই লোকানো ড্রাগস এর উদ্দেশ্যে তল্লাশি চালানো হয়। সব মিলিয়ে এই বাড়ি তিনটিতে প্রায় পাঁচ ঘন্টা ধরে তল্লাশি চালায় এন সি বি-র সেই বিশেষ দল। ৫ ঘন্টা ধরে সূক্ষাতিসূক্ষ অনুসন্ধান করেও অর্জুনের একটি বাড়িতেও পাওয়া যায়নি কোনো রকম কোনো ড্রাগের হদিশ। এন সি বি-র অফিসাররা মনে করছেন অর্জুন হয়তো অন্য কোন গোপন জায়গায় এই নিষিদ্ধ দ্রব্য লুকিয়ে রাখতে পারেন। সেই জন্য গোপন খবর জানার উদ্দেশ্যে হেফাজতে নেওয়া হয় অর্জুন রামপালের গাড়িচালককে।