রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সংবিধান পালন না করলে এবার আমার ভূমিকা পালন করতে হবে : জগদীপ ধনখর

বিজেপি সভাপতিকে নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) করা অপ্রীতিকর মন্তব্যের বিরুদ্ধে সরব হলেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর (Jagdeep Dhankhar)। রাজ্যপালের দাবি পশ্চিমবঙ্গের আইন-শৃঙ্খলা হারিয়ে যাচ্ছে। মানা হচ্ছে না সাংবিধানিক নিয়ম নীতি। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যদি অবস্থার সামাল দিতে না পারেন তাহলে নিজের ভূমিকা শুরু করতে হবে রাজ্যপাল কে, এমনটাই বার্তা দিলেন প্রেস কনফারেন্সের মঞ্চ থেকে।

Jagdeep Dhankhar vs Mamata Banerjee
Jagdeep Dhankhar vs Mamata Banerjee

রাজ্যপালের কথায়, পশ্চিমবঙ্গের (West Bengal) অবস্থা অনেকদিন থেকেই খারাপের দিকেই যাচ্ছে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যবাসীকে রক্ষা করা রাজ্যপালের কর্তব্য। তাই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যদি নিজের নিয়ম-নীতি পালনে ব্যর্থ হন তাহলে রাশ টানতে হবে রাজ্যপাল কেই। পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জাগদীপ ধনখর এদিন প্রেস কনফারেন্স করে বলেছেন “ভারতের সংবিধানের রক্ষা করার দায়িত্ব আমার। পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য বাসীদের ভালো রাখার কর্তব্য আমার। রাজা আইন-শৃংখলার অবস্থা খুব খারাপ পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সংবিধানের মর্যাদা রক্ষা করছেন না। বাংলায় সংবিধান মর্যাদা পাচ্ছে না। পুলিশ প্রশাসন ব্যর্থ হয়েছে।”

বিজেপি সভাপতি জে পি নাড্ডার পশ্চিমবঙ্গে আসা এবং তাঁর যাত্রাকে নিয়ে হওয়া উশৃঙ্খলা কে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে বার্তা ছড়িয়েছেন তা নিয়েই আজ সরব হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল। প্রেস কনফারেন্সে রাজ্যপাল আরও বলেছেন বিজেপির সভাপতির উদ্দেশ্যে যে ধরনের কথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ব্যবহার করেছেন তা খুবই দুর্ভাগ্যজনক। ভারতের মতো গণতান্ত্রিক দেশে প্রত্যেক মানুষেরই নিজের মত প্রকাশের অধিকার রয়েছে। সেখানে কাউকে বহিরাগত বলা সংবিধান বহির্ভূত। এই কাজের জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে বিজেপির সভাপতির কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিত।

গতকাল বিজেপি সভাপতি জে পি নাড্ডা পশ্চিমবঙ্গে কর্মীসভায় এলে যেভাবে তাঁর গাড়িতে এবং তার কনভয় আক্রমণ করা হয়েছে তাতে সভাপতি নিজে বলেছেন তাঁর গাড়ি যদি বুলেটপ্রুফ না হতো তাহলে আজ তাঁকেও আহত হতে হতো। গতকাল বিজেপি সভাপতি নিজের কর্মীসভার উদ্দেশ্যে রওনা হলে মাঝপথে ইঁট এবং তৃণমূলের ঝান্ডা লাগানো লাঠি ছোঁড়া হয় তার গাড়িকে নির্দিষ্ট করে। পরে এই ঘটনাকে ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির সভাপতির প্রসঙ্গে বহিরাগত শব্দটি ব্যবহার করেন। যে প্রসঙ্গে রাজ্যের রাজ্যপাল একটি প্রেস কনফারেন্স আয়োজন করেন। সেই প্রেস কনফারেন্সে রাজ্যপাল বলেন বিজেপির সভাপতির সঙ্গে রাজ্য সরকারের এহেন আচরণে একেবারেই আশাতিত নয়। রাজ্যপাল বলেন তিনি মুখ্যমন্ত্রী কে অনুরোধ করছেন তিনি যেন সংবিধান মেনে চলেন না হলে স্বয়ং রাজ্যপাল কে এবারে নিজের ভূমিকা পালন করতে হবে।