এই সপ্তাহেই ভারতের 79টি প্রশ্নের জবাব দিয়েই কি ফিরছে টিকটক?

কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রক 79টি প্রশ্নের তালিকা পাঠিয়েছে টিকটক সহ 69টি চাইনিজ অ্যাপকে। আজ ছিল সেই প্রশ্নগুলি জবাব দেওয়ার অন্তিম দিন। প্রশ্ন গুলির মাধ্যমে ভারত সরকার জানতে চেয়েছেন, বিদেশি সরকারের হয়ে কাজ করা সমস্ত অ্যাপ ব্যবহারকারী তথ্য সংগ্রহ ইত্যাদি বিষয়ের ওপর। সব প্রশ্নের উত্তর যদি সঠিকভাবে দেয় চীনা কোম্পানি বাই টডান্সের জনপ্রিয় অ্যাপ্লিকেশন টিকটক, আর তাতে যদি ভারত সরকার সন্তুষ্ট হয় তাহলে মিলতে পারে ছাড়পত্র। নিষেধাজ্ঞা যদি উঠে যায় তাহলে টিকটক, ইউসি ব্রাউজার, হ্যালো আগের মত রমরমিয়ে ব্যবসা চালিয়ে যেতে পারবে।

কেন্দ্রীয় সরকার গত মাসের 29শে জুলাই ভারতে 69টি চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ করে একটি নির্দেশিকা জারি করে। মোদি সরকার ভারতীয় সেনা জওয়ানের মৃত্যুতেই লাদাখের গালওয়ান সীমান্তের চীনা আগ্রাসন এবং চাইনিজ সেনার কাপুরুষোচিত বেনজিন আক্রমণে কড়া পদক্ষেপ নেন। মোদি সরকার অতীতের অনেক চুক্তিও বাতিল করে দেন চীনা সংস্থাগুলির সঙ্গে। ভারতে একাধিক চিনা পণ্য সর্বত্র বয়কট করা হয়। কঠোর নিষেধাজ্ঞা জারি হয় পপুলার চিনা অ্যাপ গুলির ওপর।

তবে ব্যান হওয়া অ্যাপগুলি ফিরে আসার সম্ভাবনা খুবই কম, সংশ্লিষ্ট মহল মনে করে। তারা ভারতের নিরাপত্তা এবং সার্বভৌমত্বের সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছে, টিকটকের তরফে জানানো হয়েছে। চীনা সংস্থা বাইটডান্স বিপুল সংখ্যক টাকা বিনিয়োগ করেছেন ভারতের ব্যবসা বৃদ্ধির তাগিদে। স্বদেশী স্বার্থকেই সর্বাধিকার দেয়া হবে, তা স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন মোদি সরকার। সেই জন্যই চিনা অ্যাপের জবাব পুনর্বিবেচনা করেই সিদ্ধান্ত নেবে তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রক।