Sangbad World

উপার্জনের দু’পয়সা তোলাবাজির দু’কোটির থেকে দামি: কমলেশ্বর

কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্রের (Mohua Maitra) বিতর্কমূলক বিবৃতিতে এবার প্রতিবাদ জানালেন টলিউড পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায় (Kamaleswar Mukherjee)। ‌কমলেশ্বর এর পাশাপাশি এই ঘটনা নিয়ে সোচ্চার হয়েছেন টলিউড অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ (Rudranil Ghosh)। কমলেশ্বর এদিন নিজের ফেসবুক হ্যান্ডেলে লিখেছেন, কোন পেশাই ছোট নয়। উপার্জনের দু’পয়সা তোলাবাজির থেকে অনেক বেশি সম্মানের।

ঘটনার দিন নদীয়ার গয়েশপুরে ২ নং ব্লকের (Nadia, Gayeshpur) তৃণমূলের সংসদ মহুয়া মৈত্রের একটি কর্মী সভা ছিল। যেখানে ভরা সভায় ক্যামেরার সামনে মিডিয়া সম্বন্ধে বিতর্কিত মন্তব্য করেন মহুয়া দেবী। এইদিন ঘটনায় নেত্রীকে বলতে শোনা যায়, দু’পয়সার প্রেসকে কেন ডাকো তোমরা? প্রেসকে সরাও ওখান থেকে্ দলের কর্মী বৈঠকে সবাই নিজেদের মুখ দেখাতে ব্যস্ত। ‌ এমনকি একজন সাংবাদিককে উল্লেখ করে বলেন, এখানে প্রেসের ঢোকা বারণ, কে ঢুকতে দিয়েছে তোমায়?

গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভ প্রেস কে এই ভাবে অপমান করায় কলকাতা প্রেস ক্লাব একটি বিবৃতি দিয়েছে এই তৃণমূল সাংসদ কে। সেখানে বলা হয়েছে মহুয়া মৈত্র কে নিঃশর্তভাবে ক্ষমা চাইতে হবে মিডিয়ার কাছে। যেভাবে তিনি অন ক্যামেরা সেই সমস্ত অপমানজনক কথা বলেছিলেন, একইভাবে ক্যামেরার সামনে সেই সমস্ত কথার জন্য ক্ষমা চাইতে হবে তাঁকে। শুধু তাই নয় মহুয়া মৈত্রের মুখে প্রেসের প্রতি এই ধরনের বিতর্কিত মন্তব্য শুনে জী ২৪ ঘন্টা মিডিয়া চ্যানেলটি বয়কট করেছে তাঁকে। তারা আর কোনরকম মহুয়া মৈত্র কে নিয়ে কোন সংবাদ করবেন না।

ঘটনাটিকে ঘিরে সরব হয়েছেন পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায়। কমলেশ্বর এদিন বলেছেন, কোন পেশাই ছোট নয়। জনপ্রিয়তার উপর ভরসা করে রাজনীতি করেন অনেকেই। নীতি আদর্শের উপর ভরসা করে রাজনীতি করলে এমন হতো না। তাই তাদের মুখে আজ উদ্ধত্য। কাউকে ছোট করে কেউ কোনদিন বড় হতে পারেনি। ঔদ্ধত্য শেষ কথা বলে না, শেষ কথা বলে বিনয়। শুধু তাই নয়, এর পাশাপাশি ঘটনার দিন কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায় ফেসবুকে লেখেন উপার্জনের দু’পয়সা তোলাবাজির দু’কোটির থেকে অনেক দামি।

ঘটনাটি নিয়ে নিজের মত প্রকাশ করেছেন অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষ। তিনি বলেছেন, অনেক সময় মুখ ফসকে এই ধরনের কথা বেরিয়ে যেতেই পারে। কিন্তু মহুয়া মৈত্র এর মত একজন শিক্ষিত সচেতন মানুষের কাছ থেকে এই ধরনের কথা আশানুরূপ নয়। ক্ষমা চাইলে কেউ ছোট হয় না বরং মানুষের মনে তাঁর জায়গা আরো দৃঢ় হয়।

Exit mobile version