বিজেপিশাসিত রাজ্যে আসছে লভ জিহাদ বিরোধী আইন, ৫ বছরের জেল

‘লাভ জিহাদ (Love Jihad)’ নিয়ে এযাবৎ আলোচনা কম হয়নি। তবু আলোচনা যেন থামতেই চায় না লাভ জিহাদকে নিয়ে। লাভ জিহাদের অর্থ এক অংশ মনে করেন ইসলাম (Islam) ধর্মকে ভালোবেসে সেই ধর্মের জন্য কোন বিশেষ পদক্ষেপ নেওয়া। লাভ জিহাদের বিরুদ্ধে উল্টো পথে যেসব রাজ্যগুলি হেঁটেছে তাদের তালিকায় ইতিমধ্যেই নাম লিখিয়েছিল কর্ণাটক এবং হরিয়ানা। সেই তালিকায় এবার নথিভুক্ত হল মধ্যপ্রদেশ (Madhya Pradesh)। খুব শীঘ্রই লাভ জিহাদের বিরুদ্ধে আইন আনতে চলেছে মধ্যপ্রদেশ সরকার।

মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্রের কথায়, খুব তাড়াতাড়ি লাভ জিহাদের বিরুদ্ধে আইন আনতে চলেছে মহারাষ্ট্র। লাভ জিহাদ আইনে ধরা পড়লে সাজা হতে পারে সর্বোচ্চ ৫ বছরের জেল। নরোত্তম মিশ্র বলেছেন যেসব ইসলাম ধর্মের ছেলেরা জোর করে হিন্দু (Hindu) মেয়েদের বিয়ে করে তাদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা এই লাভ জিহাদ বিরুদ্ধ আইনে বিচার হবে। শুধু তাই নয় যেসব ইসলাম ধর্মের পুরুষরা হিন্দু ধর্মের মহিলাদের ভালোবাসায় ফুঁসলিয়ে বিয়ে করে তাদের বিরুদ্ধেও এই একই ধারায় মামলা রুজু করা হবে। এক্ষেত্রে সেই মহিলার পরিবার, বাবা-মা কিংবা দাদা অর্থাৎ অভিভাবকেরা এই ধারায় মামলা করতে পারেন।

তবে মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র এও বলেছেন যেসব হিন্দু মেয়েরা ভিন্ন ধর্মের পুরুষদের এবং অন্য ধর্মের পুরুষরা হিন্দু ধর্মের মেয়েদের নিজের ইচ্ছায় এবং নিজের সিদ্ধান্তে বিবাহ করতে চান সে বিষয়ে নাক গলাবে না এই নতুন নির্মিত আইনটি। সে ক্ষেত্রে কোন মেয়ে যদি ভিন্ন ধর্মের পুরুষকে বিয়ে করে নিজের ধর্ম পরিবর্তন করতে চায় সে ক্ষেত্রে বাধ সাধবে না আইনটি। তবে বিয়ের অন্তত এক মাস আগে এ বিষয়ে জেলা শাসকের কাছে জানাতে হবে। এই আইন ” জোর করে ধর্মান্তরণ বিরোধী আইন ” বলে উল্লেখ করেছেন মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র।

জোর করে ধর্মান্তকরণ বিরোধী আইনে‌ যদি কেউ ধরা পড়ে তাহলে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা হবে তার। এ বিষয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে নরোত্তম মিশ্র বলেন, “ধর্ম স্বতন্ত্র বিল ২০২০ আগামী বিধানসভার অধিবেশনেই আনার তোড়জোড় চলছে। জোর করে বা ছলচাতুরি করে ধর্মান্তরিত করে বিয়ে করলে হতে পারে সর্বোচ্চ ৫ বছরের সাজা। তা জামিন অযোগ্য ধারায় মামলায় বন্দোবস্ত করা হচ্ছে। এই ধরনের ঘটনা বেড়েই চলেছে যা আপনারা লাভ জিহাদ বলে থাকেন।”