”আপনি ক্রিকেটার, হিন্দুদের ধর্মগুরু নন”, বিরাট কোহলিকে তীব্র আক্রমণ

দিনকে দিন কোভিড পরিস্থিতি আরো গুরুতর হচ্ছে। করোনার ত্রাসে বিপর্যস্ত জনজীবন। বহু মাসের লকডাউন কাটিয়ে শেষমেষ আনলক পর্বে বাড়ি থেকে বেরোতে পারছেন সাধারণ মানুষ। তবুও যেন মন থেকে ভয়টা পুরোপুরি কাটছে না। তবু তো পেটের তাগিদে বেরোতেই হবে। এ বছরের উৎসব গুলিতেও যেন প্রাণ নেই। এই উৎসবের মরসুমে সব উৎসবই যেন ম্রিয়মাণ। এবারের দুর্গাপুজো যেমন নম নম করে হয়েছে, নবরাত্রি তেও যেন সেভাবে মাতোয়ারা হতে পারেনি দেশবাসী। দিওয়ালিতেও (Diwali) এবছর প্রচুর নিষেধাজ্ঞা। দিওয়ালিতে বাজি ফাটানো যাতে না হয় সেই নিয়ে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে আর্জি। সেই আর্জি কেই সামনে রেখে ভিরাট কোহলি (Virat Kohli) তার ভক্ত তথা দেশবাসীর উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়েই সকলের চক্ষুশূল হয়ে উঠলেন।

Virat Kohli cricketer
Virat Kohli cricketer

ভারত সরকারের মত বিরাট কোহলি তাঁর ভক্তদের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন এ বছরে কেউ যেন বাজি না ফাটান। নিজেদের জন্যেই যেন বাজি না ফাটানো হয়। এই মুহূর্তে যা কোভিড পরিস্থিতি তাতে বাতাসে যদি বাজি ফাটানোর ফলে দূষণ বৃদ্ধি পায় তবে তা করোনা আবহে হয়ে উঠবে আরও বিপদজনক। কারণ কোভিড ভাইরাস সাধারণত মানুষের শ্বাস যন্ত্র কে আক্রমণ করে। এই পরিস্থিতিতে বাতাসে দূষণের পরিমাণ, ধূলিকনার পরিমাণ বৃদ্ধি পেলে তা শরীরের পক্ষে অত্যন্ত অস্বাস্থ্যজনক হয়ে উঠবে। যা করোনার বাড়াবাড়ি কে আরো বাড়িয়ে তুলবে।

প্রতিবারেই যে কোনো উৎসবে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে বার্তা প্রদান করেন ক্রিকেট অধিনায়ক বিরাট কোহলি। সাধারণ মানুষকে উৎসবের অভিনন্দন প্রীতি এবং শুভেচ্ছা জানান সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে। সারা বিশ্বজুড়ে বিরাটের ভক্ত সংখ্যা অগণিত। সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে এভাবেই বিরাট তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করেন। কারোর কারোর কমেন্টের উত্তরও তিনি সোশ্যাল মিডিয়ায় দিয়ে থাকেন। এইবারের দীপাবলীর উদ্দেশ্যে সেই রকমই বার্তা প্রদান করতে গিয়ে বিপাকে পড়লেন ভারতীয় ক্রিকেট অধিনায়ক।

কিছুদিন আগে আইপিএল টি-টোয়েন্টি তে আশাতিত ফল না করতে পারায় তাঁকে সমালোচনায় বিদ্ধ হতে হয়েছিল। অনেকেই বলেছিলেন খেলা ছেড়ে দিক বিরাট। সেই সমালোচনার যোগ্য জবাব দিয়েছিলেন কোহলি। আইপিএলের পরের দিকের ম্যাচগুলোতে ফাটিয়ে খেলেছিলেন এই কিংবদন্তি ক্রিকেটার। খেলা নিয়ে সমালোচনা হলে তার জবাব কোহলি দিতে জানেন। কিন্তু সারা দেশবাসীর উদ্দেশ্যে জানানো দীপাবলীর শুভেচ্ছা বার্তায় যেভাবে তাকে সমালোচনায় বিদ্ধ হতে হয়েছে তাতে তিনি সত্যিই মর্মাহত।

ভারত সরকারের বার্তাকে বিরাট সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ছড়িয়ে দিতে চেয়েছিলেন তিনি বলেছিলেন এ বছরে দীপাবলিতে কোনরকম আতশবাজি কেউ যেন না ফাটান। এই বার্তা দেওয়াতেই সোশ্যাল মিডিয়ার নেটিজেনরা রে রে করে তেড়ে এলো বিরাট এর উদ্দেশ্যে। বিরাট এদিন সোশ্যাল মিডিয়ায় বলেছেন বাজি না ফাটিয়ে মিষ্টিমুখ করে পরিবারের সকলের সাথে আনন্দে মেতে উঠুক বিশ্ববাসী এই দিওয়ালিতে। এর পরেই তাঁকে শুনতে হয় কটু কথা। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁকে বলা হয় তিনি যেন এ ধরনের বার্তা আর কখনো না দেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় কেউ লিখেছেন বিরাটের মেরুদন্ডটাই নেই । পশুদের হত্যা করার উৎসবে বিরাট কিছুই বলেন না। উনি শুধু বলবেন বাজি ফাটালে ভয় পায় পশুরা। কেউবা আবার বলেন “আপনি ক্রিকেটার। ভালোবাসা পরিচিতি এবং সম্মানের আমরাই আপনাকে ভরিয়ে দিয়েছি তা বলে এটা কখনোই ভাববেন না যে আপনি হিন্দুদের সামাজিক বা ধর্মীয় গুরু অকারণ জ্ঞান দেবেন না আপনি সেটা দেওয়ার উপযুক্ত ব্যক্তি নন।”