৬৬ টি ধর্ষণ আর ধর্ষক এক ডেলিভারি বয়! বিশালের কুকীর্তি স্তম্ভিত করছে বাংলাকে

WB police arrested a delivery boy who is accused of raping 66 woman
WB police arrested a delivery boy who is accused of raping 66 woman

বিশাল বর্মা নামে একটি ছেলে, পেশায় ফ্লিপকার্ট ডেলিভারি বয়, ব্যান্ডেল এর বাসিন্দা। ডেলিভারি বয় হিসেবে পরিচিত হলেও আসলে তিনি একজন ধর্ষক। পুলিশের খাতায় এভাবেই তার পরিচয় মেলে। এই ডেলিভারি বয় নামে পরিচিত বিশাল বর্মার নামে একাধিক অভিযোগ করে চুঁচুড়ার এক মহিলা। WB police arrested a delivery boy who is accused of raping 66 woman.

অভিযুক্ত যুবক ফ্লিপকার্ট এর সমস্ত অর্ডারের জিনিস ডেলিভারি করার পর মহিলাদের থেকে নানারকম ছলে কৌশলে ফোন নাম্বার জোগাড় করে। এভাবে তাদের সাথে বন্ধুত্ব তৈরি করে এবং তারপর ভিডিও কলে দীর্ঘদিন যোগাযোগ করতে শুরু করে। ভিডিও কলে মেয়েদের বেশ কিছু ছবি তুলে নেয় তারপরই ব্ল্যাকমেইল করা শুরু করে। এই ছিল বিশালের মাস্টার প্ল্যান। এই ব্ল্যাকমেলের ভয়েই মেয়েরা তার সংস্পর্শে যায় এবং সেখানেই তাদেরকে ধর্ষণের শিকারে আবদ্ধ করে ওই ডেলিভারি বয়। তবে এই কাজে তিনি একা নন তার সাথে যুক্ত আছে সুমন মন্ডল নামে আরো এক যুবক।

একইভাবে চুঁচুড়ার এই মহিলাকে বিশাল ফ্লিপকার্টের জিনিস ডেলিভারি করতে যায়। এরপরই ফিডব্যাকের নাম করে তার থেকে ফোন নাম্বার চেয়ে বন্ধুত্ব তৈরি করে। এবং এই বন্ধুত্বকে ভিডিও কল পর্যন্ত এগিয়ে নিয়ে যায় তারা। তারপরই মেয়েটির বেশ কিছু ছবি সে নিজের ফোনে রেখে দেয় এবং প্রতিনিয়ত মেয়েটিকে ব্ল্যাকমেইল করতে থাকে। শেষে বাধ্য হয়েই মেয়েটি তার বাড়িতে যায় এবং নির্মমভাবে তার প্রতি ধর্ষণ (Rape) চালিয়ে যায় বিশাল বর্মা। অভিযুক্ত যুবক বিশাল বর্মা নিজে থেকে স্বীকার করে যে এই নিয়ে তার ৬৬টি নম্বর মেয়েকে শিকার করা হলো। এর আগে আরো ৬৫টি মেয়েকে একইভাবে সে ধর্ষণ করে গেছে। সাথে তাদেরকে স্পষ্ট ভাবে বিশাল জানিয়ে দেয় যে তার কথা না শুনলে আবারো ধর্ষণের শিকার হবে বলে হুমকি দেয়।

এক‌ মহিলা তার এই অন্যায়ের তীব্র প্রতিবাদ জানাতে শনিবার রাতে পুলিশের কাছে গিয়ে অভিযোগ করেন বিশালের নামে। তার এই অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তৎক্ষণাৎ কাজ শুরু করে দেয়। অভিযোগ দায়ের হওয়ার পরেই শনিবার রাতে চুঁচুড়ার কেওটা ত্রিকোণ পার্ক এলাকার সংলগ্ন অঞ্চলে বিশাল কে গ্রেফতার করার জন্য পুলিশ হানা দেয়। এবং সেই সময় বিশালকে প্রায় হাতেনাতেই ধরেছে পুলিশ আধিকারিকরা। পার্কে দাড়িয়ে একইভাবে বিশাল একটি মহিলাকে শাসাচ্ছিল। এবং এই অবস্থাতে ই পুলিশ গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। এরপর অভিযুক্তের ঘর তল্লাশি করে তারা বেশ কিছু মেয়ের ছবি পায়। এবং ফোনের ভেতরে অশ্লীল কিছু ভিডিও খুঁজে পায় পুলিশ। তবে এখানেই শেষ নয় অভিযুক্ত যুবকের কাছ থেকে বেশকিছু চিপ উদ্ধার করেছেন পুলিশ। অভিযুক্তকে ঘিরে এখনো অনেক জল্পনা চলে যাচ্ছে। শাস্তি হিসেবে এখনো কিছু জানা যায়নি।