ট্রায়ালে উত্তীর্ণ না হয়েই, করোনার প্রতিষেধক টিকা সাধারণ মানুষের উপর প্রয়োগ চিনের

করোনা নিয়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এলো চিনের বিরুদ্ধে। যার উৎস মার্কিন সংবাদপত্র নিউইয়র্ক টাইমস। পরীক্ষায় পাশ করার আগেই সাধারণ মানুষের ওপর কোভিডের সম্ভাব্য টিকা প্রয়োগ করতে শুরু করে দিল চিন। এই প্রতিবেদন অনুযায়ী চিনের ওই সম্ভাব্য টিকা বৈজ্ঞানিকভাবে এখনো ট্রায়ালে উত্তীর্ণ হয়নি। তবে সে নিয়ে কোন মাথাব্যাথা নেই বেজিংয়ের। সরকারি-বেসরকারি সংস্থার কর্মী, শিক্ষক ও শিক্ষাকর্মী সহ হাজার হাজার মানুষের ওপর এই টিকা প্রয়োগ করা হচ্ছে।


ওই প্রতিবেদনে এও উল্লেখ করা হয় যে পুরো প্রক্রিয়াটিই গোপনে চালাচ্ছে চিন। এমনকি যাদের ওপর এই টিকা প্রয়োগ করা হচ্ছে, তাদেরকে দিয়ে নন-ডিসক্লোজার চুক্তি সই করিয়ে নিচ্ছে চিন। সাধারণ মানুষের প্রাণের যেন কোনো দামই নেই! টিকা আবিষ্কার করতে যে পরিমাণ সময় প্রয়োজন তার জন্য ধাপে ধাপে বেশ অনেকগুলি ট্রায়াল পেরোতে হবে। কিন্তু প্রতিযোগিতার দৌড়ে এগিয়ে থাকার তাগিদেই এই কর্মকাণ্ড চিনের। সাধারণ মানুষকে দিয়ে এই চুক্তি সই করার একটাই কারণ যাতে তারা সংবাদমাধ্যমের সামনে বা প্রকাশ্যে এ বিষয়ে মুখ খুলতে না পারে।


এখনো পর্যন্ত ঠিক কতজন মানুষের ওপর এই অবৈধ টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে তার সঠিক সংখ্যা মেলেনি। তবে করোনার প্রতিষেধক টিকা নিয়ে চিনের যে সরকারি সংস্থা গবেষণা করছে সেই সিনোফার্ম জানিয়েছে, ইতিমধ্যেই কয়েক হাজার মানুষের শরীরে ওই টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে। আরো একটি সংস্থা সিনোভ্যাক এর থেকে জানা যায়, ইতিমধ্যেই নাকি সেই সংস্থার সমস্ত কর্মী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের মিলিয়ে প্রায় তিন হাজার মানুষের দেহে সেই টিকা প্রয়োগ করা হয় এবং বেজিংয়ে প্রায় দশ হাজারেরও বেশি মানুষের ওপর ওই টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে। তবে চিনের দাবি তাদের এই টিকা প্রয়োগে তাদের গ্রিন সিগন্যাল দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

Corona Vaccine, COVID-19 Vaccine