অক্ষয় কুমারের বিরুদ্ধে আইনি পথে হাঁটার হুমকি ইউটিউবার রশিদ সিদ্দিকীর

কিছুদিন আগে এক ইউটিউবারের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা (defamation suit) করে ৫০০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়েছেন বলিউড (Bollywood) অভিনেতা অক্ষয় কুমার (Akshay Kumar)। এই ঘটনায় পাল্টা জবাব দিয়েছেন রশিদ সিদ্দিকী (Rashid Siddiqui) নামে ওই ইউটিউবার (YouTuber)। এবার আইনি পথে হাঁটার জন্য প্রস্তুত হয়ে পাল্টা জবাব দিলেন রশিদ সিদ্দিকী।

Akshay Kumar has filed a defamation suit worth Rs 500 crore against FF news YouTuber Rashid Siddiqui for spreading fake information
YouTuber Rashid Siddiqui has decided to take legal action against Akshay Kumar’s defamation case

অক্ষয় কুমারের নামে বিভিন্ন মিথ্যা এবং ভুয়া তথ্য দিয়ে সাজানো একাধিক ভিডিও বেশ কিছুদিন ধরে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশ করতে থাকেন রশিদ সিদ্দিকী নামে ওই ইউটিউবার। এই ঘটনার পর অক্ষয় সেই ইউটিউবারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করলে পাল্টা মামলা দায়েরে করেন রশিদ সিদ্দিকী। রশিদের দাবি তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সমস্ত মিথ্যে। রশিদ যে ভিডিওগুলি প্রকাশ করেছেন এবং সেই ভিডিও গুলিতে যে তথ্য ব্যবহার করা হয়েছে সেগুলি কোন মিথ্যা তথ্য নয়। বরং এই সব তথ্য রশিদ সংগ্রহ করেছেন বিভিন্ন নিউজ চ্যানেলে থেকেই। একাধিক নিউজ চ্যানেলে এ বিষয়ে কোনো না কোনো সময়ে বিভিন্ন খবর সম্প্রচার করা হয়েছিল আর সেখান থেকেই রশিদ এইসব তথ্য নিয়েছেন, এমনটাই দাবি রশিদ সিদ্দিকীর।

এফ এফ নিউজ নামে রশিদ সিদ্দিকীর ইউটিউব চ্যানেল দেখানো হয় অক্ষয় কুমার নাকি সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃত্যুর পর সুশান্ত বান্ধবী রিয়া চক্রবর্তী কে কানাডায় পালিয়ে যেতে সাহায্য করেন। শুধু তাই নয় ইউটিউব চ্যানেল এমনও দাবি করে যে অক্ষয় কুমার নাকি মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরে সঙ্গে সুশান্ত সিং রাজপুত এর মৃত্যুর পর সেই বিষয়ে বৈঠক করেন। মহারাষ্ট্রের পুলিশ কমিশনারের সঙ্গেও অক্ষয় কুমার সুশান্তের মৃত্যুর পর বৈঠক করেছেন এমন সমস্ত চাঞ্চল্যকর দাবি করে রশিদ সিদ্দিকীর এফ এফ নিউজ নামে সেই ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিওগুলি।

এই সব ভিডিওগুলি অক্ষয় কুমারের নজরে আসার পর তিনি রশিদ সিদ্দিকীর কাছে একটি আইনি নোটিশ পাঠান। যেখানে বলা হয় রশিদকে নিঃশর্তভাবে ক্ষমা চাইতে হবে অক্ষয়ের কাছে এবং এই সমস্ত আপত্তিকর ভিডিও গুলি ডিলিট করতে হবে না হলে আইনি পথে হাঁটতে বাধ্য হবেন অক্ষয়। তিন দিনের মধ্যে এর জবাব না এলে শেষমেষ অক্ষয় মানহানির মামলা করতে বাধ্য হন। রশিদের আইনজীবী মনে করেন অক্ষয়ের এই ঘটনার ফলে তাঁর ক্লায়েন্ট রশিদের সামাজিক ভাবমূর্তি এবং কেরিয়ার যথেষ্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।‌ এও বলা হয় এই ভিডিওগুলি প্রকাশ করার তিন মাস পর কেন মানহানির মামলা করছেন অক্ষয় কুমার।